ট্রেনের সঙ্গে বাসের সংঘর্ষে ১২ জন নিহতট্রেনের সঙ্গে বাসের সংঘর্ষে ১২ জন নিহত – দৈনিক গণ আওযাজ
শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী ২০২১, ১১:৪৯ পূর্বাহ্ন

ট্রেনের সঙ্গে বাসের সংঘর্ষে ১২ জন নিহত

গণ আওয়াজ ডেস্ক/৪২বার পড়া হয়েছে
আপডেট :রবিবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০২০

জয়পুরহাটে ট্রেনের সঙ্গে বাসের সংঘর্ষে ১২ জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরো অন্তত ৩ জন। দুমড়ে মুচড়ে গেছে দুর্ঘটনা কবলিত ওই বাসটি। দুর্ঘটনার পর থেকে উত্তরাঞ্চলের সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগ প্রায় ৯ ঘণ্টা বন্ধ ছিল।

শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) সকাল পৌনে সাতটার দিকে জয়পুরহাট সদরের পুরানাপৈল রেলক্রসিংয়ে এই দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার সময় ক্রসিংটির গেট খোলা ছিল ও সংশ্লিষ্ট গেটম্যান ঘুমিয়ে ছিলেন বলে জানা গেছে। দুর্ঘটনায় ১২ জন নিহত ও কয়েকজন আহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন জয়পুরহাটের পুলিশ সুপার মো. সালাম কবির ও সদর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) সারোয়ার হোসেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, জয়পুরহাট থেকে ছেড়ে আসা বাধন নামের একটি বাস হিলি স্থল বন্দরের দিকে যাচ্ছিল। জয়পুরহাট সদর উপজেলার পুরানাপৈল রেলগেট অতিক্রম করার সময় গেটম্যান গেট না ফেলার কারণে বাসটি রেললাইনের উপর উঠে যায়। সেসময় রাজশাহীগামী উত্তরা এক্সপ্রেস ট্রেন বাসটিকে সজোরে ধাক্কা দেয়। ট্রেনটি রেললাইন ধরে বাসটিকে প্রায় আধ কিলোমিটার টেনে নিয়ে যায়।

এ সময় বাসে থাকা ১০ জন যাত্রী ঘটনাস্থলেই নিহত হন। আহত হন আরো পাঁচজন। খবর পেয়ে জয়পুরহাট ও পাঁচবিবি ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের সদস্যরা হতাহতদের উদ্ধার করে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করেছে।

নিহতরা হলেন- সদর উপজেলার হারাইল গ্রামের মামুনুর রশিদ (বাসচালক), চিত্রাপাড়ার নিশি মন্ডলের ছেলে রেজাউল করিম, হিচমী গ্রামের মানিকের ছেলে রমজান, কুঠিবাড়ী ব্রিজ এলাকার শরীফুলের ছেলে আব্দুল লতিফ, ক্ষেতলালের ইটাখোলা এলাকার মঙলার ছেলে সুমন, পাঁচবিবি উপজেলার আটাপাড়ার মোশারফের ছেলে মুন্জুরুল নাসিম, জিয়ার মোড়ের মিরাজের ছেলে জিয়া হক, আটুল গ্রামের সরোয়ার হোসেন, আরিফুর রহমান রাব্বি, আক্কেলপুর উপজেলার চকবিলা গ্রামের দুদু কাজীর ছেলে সাজু মিয়া, নওগাঁর রানী নগর উপজেলার বিজয়কান্দি গ্রামের বাবুল ও টাঙ্গাইলের মাটিকাটা গ্রামের শুকুর আলীর ছেলে জুলহাস।

আহতরা হলেন- পাঁচবিবি উপজেলার ফারুখ হোসেন, একই উপজেলার সিরাজুল ইসলামের ছেলে জিয়া, টাঙ্গাইলের মাটিকাটা গ্রামের শুকুর আলীর জুলহাস।

জয়পুরহাট জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তরিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, আহতদের উদ্ধার করে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে।

জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক সাইফুল ইসলাম জানান, ১০ জনের লাশ মর্গে আছে। আহত পাঁচজনকে বগুড়া শহীদ জিয়া মেডিকেল হাসপাতালে স্থানান্তর করার পথে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। পাবর্তীপুর রেললাইনের পুলিশ সুপার সিদ্দীকি তানজিলুর রহমান বলেন, গেটম্যান না থাকার কারণে এ ঘটনা ঘটেছে তবে তদন্ত করার পর আসল ঘটনা জানা যাবে।

এরইমধ্যে ৪ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। পাকশী বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা (ডিটিও) নাসির উদ্দিনকে আহ্বায়ক করে এ কমিটি গঠন করা হয়। অন্য সদস্যরা হলেন- পাকশী বিভাগীয় প্রকৌশলী-২ আব্দুর রহিম, পাকশী বিভাগীয় যান্ত্রিক প্রকৌশলী (লোকো) আশিষ কুমার মণ্ডল, পাকশী বিভাগীয় মেডিক্যাল অফিসার শাকিল আহমেদ।

ডিজিএ/এমডিজেএম


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরো খবর