নিহত আবু ইউনুছ মোহাম্মদ সহিদুন্নবী জুয়েলের পরিবারকে আর্থিক অনুদান দিয়েছে জেলা প্রশাসন।নিহত আবু ইউনুছ মোহাম্মদ সহিদুন্নবী জুয়েলের পরিবারকে আর্থিক অনুদান দিয়েছে জেলা প্রশাসন। – দৈনিক গণ আওযাজ
শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০৬:৪১ পূর্বাহ্ন

নিহত আবু ইউনুছ মোহাম্মদ সহিদুন্নবী জুয়েলের পরিবারকে আর্থিক অনুদান দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

ডিজিএ অনলাইন/১৮বার পড়া হয়েছে
আপডেট :রবিবার, ৮ নভেম্বর, ২০২০

লালমনিরহাটের বুড়িমারীতে গুজব ছড়িয়ে পিটিয়ে হত্যা এবং মরদেহ পুড়িয়ে ফেলা আবু ইউনুছ মোহাম্মদ সহিদুন্নবী জুয়েলের পরিবারকে আর্থিক অনুদান দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

আজ রোববার দুপুরে জেলা প্রশাসক সম্মেলনকক্ষে নিহত জুয়েলের মেয়ে জেবা তাসনিয়ার হাতে চেক তুলে দেন জেলা প্রশাসক আবু জাফর। এ সময় জুয়েলের বড় ভাই আবু ইউসুব মো. তওহিদুন্নবীসহ জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় জেবা তাসনিয়া সাংবাদিকদের বলেন, ‘যারা আমাকে এতিম করেছে, পিতৃহারা করেছে তাদের কঠোর শাস্তি চাই। শুধু অনুদান নয়, বাবার হত্যাকারীদের বিচার চাইতে এসেছি।’

জুয়েলের বড় ভাই আবু ইউসুব মো. তওহিদুন্নবী বলেন, ‘প্রশাসনের তৎপরতায় আমাদের বিশ্বাস ন্যায়বিচার পাব। ন্যায়বিচারের অপেক্ষায় রয়েছি। তবে দ্রুত বিচারকাজ শেষ করতে কর্তৃপক্ষের নিকট দাবি জানাচ্ছি।’

নিহত সহিদুন্নবী জুয়েল রংপুর শহরের শালবন মিস্ত্রিপাড়ার আব্দুল ওয়াজেদ মিয়ার ছেলে। তিনি রংপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের সাবেক গ্রন্থাগারিক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র। গত বছর চাকরিচ্যুত হওয়ায় কিছুটা মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছিলেন তিনি।

জানা গেছে, গত ২৯ অক্টোবর লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারী জামে মসজিদে কোরআন অবমাননার অভিযোগ এনে জুয়েল ও তাঁর সঙ্গী একই এলাকার সুলতান রুবায়াত সুমনকে গণপিটুনি দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে আটকিয়ে রাখে স্থানীয়রা। পরে সন্ধ্যায় ইউপি ভবন ভেঙে প্রশাসনের উপস্থিতিতে জুয়েলকে পিটিয়ে আগুনের মধ্যে ফেলা দেওয়া হয়। ওই দিন রাত সাড়ে ১০টায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয় পুলিশ।

এতে স্থানীয়দের ছোড়া পাথরের আঘাতে পাটগ্রাম থানার ওসি সুমন কুমার মহন্তসহ ১০ পুলিশ সদস্য আহত হয়। পুলিশ জুয়েলের সঙ্গী রুবায়াত সুমনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।

এ ঘটনায় নিহত জুয়েলের চাচাত ভাই সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা এবং পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে ও ইউপি ভবন ভাঙচুরের দায়ে ইউপি চেয়ারম্যান বাদী হয়ে অপর একটি মামলা করেন। আলোচিত এ ঘটনায় তিন মামলায় ১১৪ জনের নামসহ শত শত অজ্ঞাত আসামির মধ্যে পুলিশ রোববার পর্যন্ত ২৯ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

ঘটনার পর তদন্ত করে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন ও জেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটি কোরআন অবমাননার কোনো সত্যতা পায়নি। এটি মূলত একটি গুজব ছিল বলে তারা দাবি করে।

ডিজিএ/এমডিজেএম


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরো খবর