ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘ঘ’ ও ‘চ’ ইউনিটের আলাদা পরীক্ষা নেওয়া হবে না।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘ঘ’ ও ‘চ’ ইউনিটের আলাদা পরীক্ষা নেওয়া হবে না। – দৈনিক গণ আওযাজ
বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ১১:৪৫ পূর্বাহ্ন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘ঘ’ ও ‘চ’ ইউনিটের আলাদা পরীক্ষা নেওয়া হবে না।

গণ আওয়াজ ডেস্ক/২৮বার পড়া হয়েছে
আপডেট :রবিবার, ৮ নভেম্বর, ২০২০

২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে ‘ঘ’ ইউনিট ও চারুকলা অনুষদের অধীনে ‘চ’ ইউনিটের আলাদা পরীক্ষা আর নেওয়া হবে না। আগের পাঁচটি ইউনিটের জায়গায় এখন সব মিলিয়ে বিজ্ঞান, মানবিক ও ব্যবসা শিক্ষা- এই তিনটি ইউনিটে পরীক্ষা হবে। তবে চলতি শিক্ষাবর্ষে (২০২০-২১) আগের নিয়মেই পাঁচটি ইউনিটের আওতায় পরীক্ষা নেওয়া হবে।

আজ রোববার সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন’স কমিটির এক সভায় উপাচার্য ‘ঘ’ ও ‘চ’ ইউনিট বন্ধের প্রস্তাব দেন। উচ্চমাধ্যমিকে শিক্ষার্থীরা যে তিন ধারায় (বিজ্ঞান, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা) পড়াশোনা করেন, তার আলোকেই ভর্তি পরীক্ষার তিনটি ইউনিট করতে চান উপাচার্য। সভায় এটি নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে আলোচনা হয়। সেখানে বেশির ভাগ ডিন প্রস্তাবের পক্ষে মত দেন। তবে অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সভায় বিষয়টি চূড়ান্ত হবে।

এদিকে, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক সাদেকা হালিম এই সিদ্ধান্তকে খুব একটা যৌক্তিক বলে মনে করছেন না। তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘পরীক্ষা কমানোর ভাবনা থেকে সভায় উপাচার্য ঘ ইউনিট বন্ধের প্রস্তাব তোলেন। তিনি বলেন যে, “ভর্তি পরীক্ষার ইউনিট বেশি হয়ে গেছে।” আইন অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক মো. রহমত উল্লাহ ও কলা অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক আবু মো. দেলোয়ার হোসেন উপাচার্যের প্রস্তাবে সমর্থন দেন। কিন্তু এটি সমর্থন-অসমর্থনের কোনো বিষয় নয়।’

 

অধ্যাপক সাদেকা হালিম আরও বলেন, ‘সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের একটা স্বকীয়তা আছে। এই অনুষদের ১৬টি বিভাগ থেকে সরকারি ও বেসরকারি নানা সেক্টরে শিক্ষার্থীরা যাচ্ছেন, ভালো করছেন। তিন শতাধিক শিক্ষক এই অনুষদে পাঠদান করেন। শিক্ষকেরা নিজস্ব পরীক্ষা চান। আমার বক্তব্য, আমাদের অনুষদের জন্য (সামাজিক বিজ্ঞান) স্বতন্ত্র ইউনিট হওয়া উচিত। তা না পারলে কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ নামে ভর্তি পরীক্ষার ইউনিট করতে হবে। অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলে অবশ্যই এটি নিয়ে আলোচনা হবে।’

বিষয়টি নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘উচ্চমাধ্যমিকের শিক্ষার্থীরা যে তিনটা ধারায় পড়াশোনা করেন, অর্থাৎ- বিজ্ঞান, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ; সেই তিন ধারাকে বিবেচনায় রেখে তিনটি ইউনিটে ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হবে। পাঁচ ইউনিটের পরিবর্তে তিনটি ইউনিটের আওতায় পরীক্ষাগুলো নেওয়া হবে। ইউনিটের যেকোনো নামকরণ হতেই পারে। এতে যেটা হবে, পরীক্ষা নেওয়ার চাপ কমে আসবে। তবে চলতি শিক্ষাবর্ষে (২০২০-২১) আগের নিয়মেই পরীক্ষা হবে।’ সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিনের আপত্তির বিষয়ে উপাচার্য বলেন, ‘এই সিদ্ধান্ত ব্যক্তিপর্যায়ের কোনো ব্যাপার নয়।’

প্রসঙ্গত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটে বিজ্ঞান, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা- এই তিন বিভাগের শিক্ষার্থীরাই আবেদন করতে পারেন। সামাজিক বিজ্ঞান ও কলা অনুষদের বিভিন্ন বিভাগ এবং বিজ্ঞানবিষয়ক কয়েকটি বিষয়ে এই ইউনিট থেকে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়।

ডিজিএ/এমডিজেএম


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরো খবর