বরিশালে চাকরি দেয়ার প্রলোভনে যুবতীকে ধর্ষণবরিশালে চাকরি দেয়ার প্রলোভনে যুবতীকে ধর্ষণ – দৈনিক গণ আওযাজ
রবিবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:৪০ পূর্বাহ্ন

বরিশালে চাকরি দেয়ার প্রলোভনে যুবতীকে ধর্ষণ

নিজস্ব প্রতিবেদক/৩৬বার পড়া হয়েছে
আপডেট :বুধবার, ৪ নভেম্বর, ২০২০

বরিশালে চাকরি দেয়ার প্রলোভনে যুবতী ধর্ষণ মামলার আসামি কলেজ অধ্যক্ষকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। বুধবার মামলার আসামি হিসেবে অধ্যক্ষ বরিশাল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করেন।

ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবু শামীম আজাদ অধ্যক্ষকে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

জেলে যাওয়া অধ্যক্ষ হলো- শহীদুল ইসলাম। তিনি বাকেরগঞ্জ উপজেলার কলসকাঠি ইউনিয়নের কোচনগর এলাকার আ. রশিদ মাতুব্বরের ছেলে। এছাড়াও তিনি বাকেরগঞ্জ কবাই ইউনিয়ন ইসলামিয়া ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

বেঞ্চ সহকারী আজিবর রহমান জানান, মামলার বাদী যুবতীর সাথে অটোতে অধ্যক্ষ শহিদুল ইসলামের পরিচয় হয়। পরিচয়ের সূত্র ধরে সে যুবতীর মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে। পরে অধ্যক্ষ ওই যুবতীকে বিভিন্ন সময় ফোন করে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। এছাড়াও তার কলেজে চাকরি দেয়ার প্রলোভন দেয়। এতে যুবতী ও অধ্যক্ষের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ধারাবাহিকতায় অধ্যক্ষ বিভিন্ন সময় যুবতীর বাড়িতে যায়। ওই সময় যুবতীর ঘরে কেউ না থাকার সুযোগ নিয়ে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করে। পরে যুবতীকে বিয়ে না করে টালবাহানা শুরু করে। একপর্যায়ে তাকে বিয়ে করার কথা অস্বীকার করাসহ বিভিন্ন ধরনের হুমকি দেন অধ্যক্ষ। এ ঘটনায় গত ২২ জুন বাকেরগঞ্জ থানায় অধ্যক্ষ শহিদুল ইসলামকে অভিযুক্ত করে মামলা করেন যুবতী। মামলার পর গত ২৩ সেপ্টেম্বর অধ্যক্ষ শহিদুল ইসলাম উচ্চ আদালত থেকে ৬ সপ্তাহের আগাম জানিন নেন। উচ্চ আদালতের আগাম জামিন শেষে অধ্যক্ষ শহিদুল ইসলাম ট্রাইব্যুনালে হাজির হয়ে আবার জামিন আবেদন করেন। বিচারক তা নামঞ্জুর করে তাকে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

ডিজিএ/এমডিজেএম


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরো খবর