মহানবী (সা,) কে অবমাননার দায়ে রাষ্ট্রীয়ভাবে ফ্রান্সের সকল পণ্য বর্জনের ঘোষণা দিতে হবে।মহানবী (সা,) কে অবমাননার দায়ে রাষ্ট্রীয়ভাবে ফ্রান্সের সকল পণ্য বর্জনের ঘোষণা দিতে হবে। – দৈনিক গণ আওযাজ
শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ০২:১৮ পূর্বাহ্ন

মহানবী (সা,) কে অবমাননার দায়ে রাষ্ট্রীয়ভাবে ফ্রান্সের সকল পণ্য বর্জনের ঘোষণা দিতে হবে।

ডিজিএ অনলাইন ডেস্ক/৩২বার পড়া হয়েছে
আপডেট :শনিবার, ৩১ অক্টোবর, ২০২০

মহানবী (সা,) কে অবমাননার দায়ে ফ্রান্সের সাথে কূটনৈতিক সর্ম্পক ছিন্ন করতে হবে। আগামী সংসদ অধিবেশনে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব পাশ করতে হবে। রাষ্ট্রীয়ভাবে ফ্রান্সের সকল পণ্য বর্জনের ঘোষণা দিতে হবে। গতকাল জাতীয় ইমাম সমাজ বাংলাদেশের উদ্যোগে রাজধানীর বিভিন্ন মসজিদ থেকে ইমাম-ওলামাদের নেতৃত্বে ফ্রান্স দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচি পালনকালে পলাশীর মোড়ে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন। সংগঠনের সভাপতি ক্বারি আবুল হোসেনের সভাপতিত্বে এবং মহাসচিব মুফতি মিনহাজ উদ্দিনের পরিচালনায় এতে যেসব নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন, মাওলানা বেলায়েত হোসেন আল-ফিরোজী, মাওলানা জাফর আহমদ, মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস, মুফতি তাসলিম আহমদ, মাওলানা জাহিদ আলম, মাওলানা শহিদুল আনোয়ার সাদী, মাওলানা আনোয়ারুল হক, মাওলানা যোবায়ের আহমদ কাসেমী, মাওলানা শামসুল হক ওসমানী, মাওলানা হামিদুল হক, মাওলানা হেদায়েতুল্লাহ গাজী, মাওলানা ক্বারি খালেদ মোশাররফ, মাওলানা রহমতুল্লাহ ও মাওলানা আশরাফ। ঘেরাও পূর্ব সমাবেশে জাতীয় ইমাম সমাজ বাংলাদেশ দেশের সর্বস্তরের মুসলমানদের পক্ষ থেকে সরকারের প্রতি কতিপয় দাবি জানানো হয়। দাবিগুলো হচ্ছে, জাতীয় সংসদের আগামী অধিবেশনে ফ্রান্স সরকারের এ অবমাননার কঠোর সমালােচনা ও নিন্দা প্রস্তাব পাশ করতে হবে, ফ্রান্স সরকারের সাথে সমস্ত রাজনৈতিক, কূটনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে,যদি ফ্রান্স সরকার মহানবী (সা.) ও ইসলামের প্রতি বিদ্বেষপূর্ণ আচরণের জন্য রাষ্ট্রীয়ভাবে ক্ষমা না চায় তাহলে ফ্রান্স দূতাবাস বন্ধ ও ফ্রান্সের সমস্ত নাগরিককে দেশে ফেরত পাঠানাের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে, তুরস্কসহ বিভিন্ন মুসলিম রাষ্ট্রের সাথে মহানবীর (সা.) ইজ্জত রক্ষার আন্দোলনে বাংলাদেশ সরকারকে অগ্রণি ভূমিকা পালন ও ইসলামের পক্ষে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করতে হবে এবং ফ্রান্সের সাথে অর্থনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন এবং তাদের পণ্য বর্জন করতে হবে। পরে ফ্রান্স দূতাবাস ঘেরাও করার লক্ষ্যে মিছিলটি অগ্রসর হলে পুলিশ বাধা দেয়। পুলিশের সাথে ধাক্কাধাক্কির পর মিছিলটি নীলক্ষেত এলাকায় গিয়ে শেষ হয়।

ডিজিএ/এমডিজেএম


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরো খবর