কক্সবাজার পিএমখালীর ইয়াবা ব্যবসায়ী হুমায়ুন ইয়াবা চালানের সময় জনতার হাতে গণধোলাই।কক্সবাজার পিএমখালীর ইয়াবা ব্যবসায়ী হুমায়ুন ইয়াবা চালানের সময় জনতার হাতে গণধোলাই। – দৈনিক গণ আওযাজ
সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন

কক্সবাজার পিএমখালীর ইয়াবা ব্যবসায়ী হুমায়ুন ইয়াবা চালানের সময় জনতার হাতে গণধোলাই।

নিজস্ব প্রতিবেদক/৯৪বার পড়া হয়েছে
আপডেট :সোমবার, ৬ জুলাই, ২০২০

কক্সবাজার সদর উপজেলার পিএমখালী ইউনিয়নে মাছুয়াখালী বাজারে জনতার হাতে ধোলাই একাধিক ইয়াবা মামলা, ডাকাতির মামলা ও অস্ত্র মামলার আসামী হুমায়ূন। ইয়াবা ব্যবসায়ী হুমায়ুন পিএমখালী ইউনিয়নের ধাওনখালী গ্রামের কবির আহমদের ছেলে। এলাকার সচেতন ব্যক্তিদের অনেকেই বলেন এখন ইয়াবা ব্যবসায়ীদের প্রতি কক্সবাজার প্রশাসন কঠোর নজরদারি হওয়ার কারণে শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী হুমায়ুন ইয়াবা পাচারের পথ বেছে নিয়েছে পিএমখালী ইউনিয়ন। গত ৪জুলাই ইয়াবা পাচারের সময় এলাকাবাসী হাতে নাতে ধরে পেলে শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী হুমায়ুনকে। সেই মূহুর্তে ইয়াবা ব্যবসায়ী হুমায়ুন অস্ত্র দেখিয়ে এলাবাসীর হাত থেকে পালিয়ে যেতে গন ধোলাই খাই।

মাছুয়াখালী বাজারের সভাপতি জনাব ডা. হারুনর রশিদের সাথে কথা বললে তিনি বলেন একাধিক মামলার আসামী পিএমখালী ইউনিয়ন ও সদর উপজেলার তালিকাভুক্ত চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী হুমায়ুন । দীর্ঘ দিন ধরে ইয়াবা মামলার জেল খেটে বের হয়ে ফের শুরু করে অবৈধ ইয়াবা ট্যাবলেটের ব্যবসা। তারই ধারাবাহিকতায় পিএমখালী ইউনিয়নের মাছুয়াখালী বাজারে ইয়াবা চালান দিতে গিয়ে গণধোলাই খেয়ে পালিয়ে যায়। তিনি আরও বলেন হুমায়ূন দীর্ঘ বছর ধরে সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে আসছিল ইউনিয়ন জুড়ে। অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে সে এমন কোন অপরাধ নেই যা সংগঠিত করেনি। সে জেল থেকে বাহিরে থাকলেই এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

৮নং পিএমখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাষ্টার আব্দুর রহিমকে মুঠোফোনে না পেয়ে ইউপি সদস্য আরিফ উল্লাহর সাথে কথা বললে তিনি বলেন হুমায়ুন ইয়াবা পাচারের সময় জনতার হাতে গণধোলাইয়ের বিষয়টি আমি শোনেছি। সে পূর্বেও এইভাবে ইয়াবা পাচার ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে জড়িত। এমনকি সে কয়েকটা মামলার আসামীও।

উল্লেখ পিএমখালী ইউনিয়নের ধাওনখালী গ্রামের কবির আহমদের ছেলে ইয়াবা ব্যবসায়ী হুমায়ূনের বিরুদ্ধে ট্রাফিক পুলিশ মারধরের মামলাও রয়েছে। যার মামলা নং ১০৪/২০১৯, এবং ইয়াবা পাচারের মামলা নং ৪৭/২০১৯। এছাড়াও ধারালো অস্ত্র দিয়ে গ্রাম্য ডাক্তার হারুন অর রশীদের বাড়িতে হামলা ও হুমকির বিরুদ্ধে মামলা হয় তার বিরুদ্ধে, যার মামলা নং জিআর ৪২৩/২০১৯। পিএমখালী মুহসিনিয়া পাড়ার জাশেদ কামাল নামের একজন ব্যক্তি সন্ত্রাসী হুমায়ূনের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন কক্সবাজার সদর মডেল থানায়। যার অভিযোগ পত্রের কপি প্রতিবেদকের হাতে রয়েছে। এইভাবে শত শত অপরাধ করেই চলছে শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী হুমায়ুন।

এলাকার সচেতন ব্যাক্তিরা বলেন সরকার মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা দিয়েছেন এবং কক্সবাজার প্রশাসন ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সাথে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন। এরপরও কেন ধরা ছুঁয়ার বাহিরে শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী হুমায়ুন। চিহ্নিত শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী ও ডাকাত হুমায়ূনকে দ্রুত গ্রেফতার করার জন্য জোর দাবি জানিয়েছেন এলাকার সাধারণ মানুষ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরো খবর